স্থানীয় সিন্ডিকেটের কারণেই চামড়ার দাম কম: বিটিএ

স্থানীয় সিন্ডিকেটের কারণেই চামড়ার দাম কম: বিটিএ

স্থানীয় পাইকার এবং খুচরা ব্যবসায়ী সিন্ডিকেটের কারণে বাজারে চামড়ার দাম এত কম। তারা নিজেদের মধ্যে যোগসাজশ করে চামড়ার দাম কম দিচ্ছে। জানালেন  ট্যানারি মালিকদের সংগঠন বাংলাদেশ ট্যানার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিটিএ) এর চেয়ারম্যান শাহীন আহমেদ।

শনিবার সকালে বাংলাদেশ ট্যানার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিটিএ) এর ধানমন্ডি কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

শাহীন আহমেদ বলেন, গত বছরের তুলনায় এ বছর প্রতি বর্গফুট খাসির চামড়ার দাম ৭ টাকা কম। সেখানে আড়ৎদার বা খুচরা ব্যবসায়ীরা কিভাবে বেশি দাম দেবে? সরকার নির্ধারিত দামে আড়তদার ও ডিলারদের কাছ থেকে এ বছর এক কোটির ওপরে গরু, ছাগল, ভেড়া ও মহিষের চামড়া সংগ্রহ করা হবে।

খুচরা ব্যবসায়ী এবং চামড়ার আড়ৎদারদের আশ্বাস দিয়ে তিনি বলেন, আপনারা কাঁচা চামড়া লবন দিয়ে সংরক্ষণ করেন। ট্যানারির প্রতিনিধিরা তিন থেকে চার দিনের মধ্যে আড়ৎদারদের কাছে যেয়ে চামড়া নিয়ে আসবে।লবন দিয়ে ভালোভাবে সংরক্ষণ না করলে সেই চামড়া নেওয়া যাবে না।

বিটিএ এর চেয়ারম্যান আরও বলেন, কিছুদিন হয়েছে নতুন জায়গায় ট্যানারি নেয়া হয়েছে। ট্যানারি মালিকদের হাতে মূলধন কম।১১৩ টি ট্যানারি স্থান্তরিত হয়েছে। এর মধ্যে ৪০টি ট্যানারি পুরোপুরি উৎপাদনে গেছে।

এবার গরু ছাগলের চামড়া গত কয়েক বছরের তুলনায় কম। ছাগলের চামড়া কোনো কোনো এলাকায় ১০ টাকায়ও বিক্রি হয়েছে। এটি কীভাবে সম্ভব? সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের উত্তরে শাহীন আহমেদ বলেন, বাংলাদেশ থেকে চামড়া রপ্তানির সুযোগ আগে থেকে কমে গেছে। আর গত বছরের চামড়া এখনো রয়ে গেছে। সেজন্য ব্যবসায়ীদের এবার চামড়া কেনার আগ্রহ কম। আর চাহিদা কম থাকায় দামও কম। এছাড়া চীন বাংলাদেশের চামড়ার প্রধান রপ্তানি বাজার। কিন্তু সেখানে চাহিদা কমে যাওয়ায় রপ্তানি মার্কেটেও মন্দা দেখা দিয়েছে।

Leave a Comment