আজ পবিত্র ঈদুল আজহা

আজ পবিত্র ঈদুল আজহা

আজ পবিত্র ঈদুল আজহা। প্রতিটি মুসলমানের ঘরে ঘরে খুশির আনন্দ। তবে দেশব্যাপী ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব ছড়িয়ে পড়ায় ঈদ উদযাপনে কিছুটা শঙ্কা দেখা দিয়েছে।মহান আল্লাহ নবী হযরত ইব্রাহিমের ঈমানের পরীক্ষা নেওয়ার জন্য তার একমাত্র ছেলে হযরত ইসমাইলকে কুরবানি করার নির্দেশ দিয়েছিলেন। নবী ইব্রাহিম সেই পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার স্মরণে সচ্ছল মুসলিমরা এ দিনটিতে পশু কুরবানি করে থাকেন।

সারা দেশের মুসলিমরা সকালে ঈদগাহে নামাজ আদায় এবং দেশ ও জাতির শান্তি, সমৃদ্ধি ও কল্যাণ কামনা করে মোনাজাত শেষে বাড়ি ফিরবেন এবং পশু কুরবানি দিবেন।

রাজধানী ঢাকা, কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়া ও দিনাজপুরের গোর-এ শহীদ বড় ময়দানসহ সারা দেশে ঈদের জামাত আয়োজনের জন্য ইতিমধ্যে প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

ইসলামিক ফাউন্ডেশন জানিয়েছে, ঈদুল আজহা উপলক্ষে জাতীয় ঈদগাহ ময়দানে দেশের প্রধান ঈদ জামাত সকাল আটটায় অনুষ্ঠিত হবে। নামাজে ঈমামতি করবেন বায়তুল মোকাররমের জাতীয় মসজিদের পেশ ইমাম হাফেজ মুফতি মাওলানা মিজানুর রহমান। এতে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ সর্বস্তরের মানুষের সঙ্গে ঈদের নামাজ আদায় করবেন বলে কথা রয়েছে।

বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে ঈদুল আজহার পাঁচটি জামাত অনুষ্ঠিত হবে। প্রথম জামাত সকাল সাতটায়, দ্বিতীয় জামাত সকাল আটটায়, তৃতীয় জামাত সকাল নয়টায়, চতুর্থ জামাত সকাল ১০টায় এবং পঞ্চম ও সর্বশেষ জামাত সকাল ১০টা ৪৫ মিনিটে হবে।

জাতীয় ঈদগাহ ময়দানে নারীদের নামাজ আদায়ের জন্য আলাদা ব্যবস্থা থাকবে।

এদিকে, দেশব্যাপী শান্তিপূর্ণভাবে ঈদুল আজহা পালনের জন্য নিরাপত্তা বাহিনীগুলো পর্যাপ্ত প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে। সেইসঙ্গে তাদের সড়ক, নদী ও রেলপথে যান চলাচল নির্বিঘ্ন রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

শহরের প্রধান সড়ক ও সড়ক দ্বীপগুলো জাতীয় পতাকা এবং বাংলা ও আরবিতে ‘ঈদ মোবারক’ লেখা ব্যানারে সজ্জিত করা হয়েছে। ঈদ উপলক্ষে কারাগার, হাসপাতাল, সরকারি শিশু কেন্দ্র, ছোটমনি নিবাস ও আশ্রয়কেন্দ্রগুলোতে বিশেষ খাবার পরিবেশন করা হবে।

বাংলাদেশ টেলিভিশন ও বাংলাদেশ বেতারসহ বেসরকারি টিভি চ্যানেল ও রেডিও স্টেশনগুলো বিশেষ অনুষ্ঠানমালা প্রচার করছে।

পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণীতে দেশবাসীসহ বিশ্বের সব মুসলিমদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।

রাষ্ট্রপতি তার বাণীতে বলেন, কুরবানি আত্মদান ও আত্মত্যাগের মানসিকতা সৃষ্টি করে এবং আত্মীয়-স্বজন ও পাড়া-প্রতিবেশীর সঙ্গে সুখ-দুঃখ ভাগাভাগি করে নেয়ার মনোভাব ও সহিষ্ণুতার শিক্ষা দেয়।

বাংলাদেশ বিশ্ব দরবারে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির অনন্য দৃষ্টান্ত উল্লেখ করে তিনি বলেন, আবহমানকাল থেকে বাংলাদেশে সব ধর্মের মানুষ স্বাধীনভাবে নিজেদের ধর্ম ও আচার-অনুষ্ঠান জাঁকজমকের সঙ্গে পালন করে আসছে। ‘এটা আমাদের সম্প্রীতির এক অনুপম ঐতিহ্য। এ ঐতিহ্যকে সমুন্নত রেখে দেশ ও জাতির কল্যাণে তা কাজে লাগাতে হবে।’

রাষ্ট্রপতি সরকার নির্ধারিত স্থানে কুরবানি দেওয়া ও বর্জ্য অপসারণে সবাইকে সচেষ্ট থাকার আহ্বান জানান।

প্রধানমন্ত্রী তার বাণীতে বলেন, ঈদুল আজহা শান্তি, সহমর্মিতা, ত্যাগ ও ভ্রাতৃত্ববোধের শিক্ষা দেয়। ‘আসুন, আমরা সবাই পবিত্র ঈদুল আজহার মর্মবাণী অন্তরে ধারণ করে নিজ নিজ অবস্থান থেকে জনকল্যাণমুখী কাজে অংশ নিয়ে বৈষম্যহীন, সুখী, সমৃদ্ধ ও শান্তিপূর্ণ বাংলাদেশ গড়ে তুলি।’

প্রতিবারের মতো এবারও ঈদ ধনী-গরিব নির্বিশেষে সবার জীবনে সুখ ও আনন্দের বার্তা বয়ে আনবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

Leave a Comment