বন্যা পরিস্থিতি উন্নতি, সকল নদীর পানি বিপৎসীমার নিচে

বন্যা পরিস্থিতি উন্নতি, সকল নদীর পানি বিপৎসীমার নিচে

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের ন্যাশনাল ডিজাস্টার রেসপন্স কো-অর্ডিনেশন সেন্টারের আজ দুপুর ১টার প্রতিবেদন অনুযায়ী দেশের প্রধান নদ-নদীসমূহের পানি হ্রাস পাচ্ছে যা আগামী ৪৮ ঘণ্টা পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে। প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী বিগত ২৪ ঘণ্টায় ৭০টি স্থানে পানির সমতল হ্রাস পেয়েছে, বৃদ্ধি পেয়েছে ২০টি স্থানে। সকল নদ-নদীর পানি বিপৎসীমার নিচে নেমে এসেছে।

          প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, বান্দরবান, খাগড়াছড়ি, রাঙ্গামাটি, ফেনী, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, নীলফামারী, লালমনিরহাট, নেত্রকোনা, মৌলভীবাজার, হবিগঞ্জ, সিলেট, মুন্সিগঞ্জ, সুনামগঞ্জ, শেরপুর, রাজবাড়ী, মানিকগঞ্জ, মাদারীপুর শরিয়তপুর, সিরাজগঞ্জ, কুড়িগ্রাম, টাঙ্গাইল, জামালপুর, ফরিদপুর, গাইবান্ধা ও চাঁদপুর জেলার বন্যার পানি নেমে গেছে, আশ্রয় কেন্দ্রের লোকজন নিজ নিজ বাড়িঘরে ফিরে গেছেন। এ সকল জেলার বন্যা পরিস্থিতির সার্বিক উন্নতি হয়েছে।

          প্রতিবেদন অনুযায়ী আবহাওয়ার পূর্বাভাস : খুলনা, বরিশাল, চট্টগ্রাম, সিলেট ও ঢাকা বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এবং রংপুর, রাজশাহী ও ময়মনসিংহ বিভাগের দু-এক জায়গায় অস্থায়ী দমকা হাওয়া-সহ হালকা থেকে মাঝারি ধরণের বৃষ্টি অথবা বজ্র-সহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সাথে দেশের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারী বর্ষণ হতে পারে। ঢাকা, ফরিদপুর, মাদারীপুর, টাঙ্গাইল, ময়মনসিংহ, খুলনা, বরিশাল, পটুয়াখালী, নোয়াখালী, কুমিল্লা, চট্টগ্রাম, কক্সবাজার এবং সিলেট অঞ্চলের নদীবন্দরসমূহকে  ১ নম্বর সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

          সরকার গত ১ জুলাই থেকে আজ পর্যন্ত বিভিন্ন জেলায় ২৮ হাজার ৬৫০ মে. টন চাল, ৪ কোটি ৯৩ লাখ ৫০ হাজার টাকা, ১ লাখ ১৮ হাজার কার্টুন শুকনা খাবার, ৮ হাজার ৫০০ সেট তাঁবু, ৫৪ হাজার ৭০০ বান্ডিল ঢেউটিন, গৃহ নির্মাণে ১৬ কোটি ৪১ লাখ টাকা, শিশুখাদ্য ক্রয়ে ১৮ লাখ টাকা এবং গোখাদ্য ক্রয়ে ২৪ লাখ টাকা বরাদ্দ প্রদান করেছে।

Leave a Comment