মাদার অব হিউম্যানিটি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

মাদার অব হিউম্যানিটি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

নেদারল্যান্ডসের বিখ্যাত পত্রিকা ডিপ্লোম্যাট ম্যাগাজিন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ‘মাদার অব হিউম্যানিটি’ সংক্রান্ত খবরকে প্রচ্ছদ হিসেবে ব্যবহার করে তাদের চলতি সংখ্যার মোড়ক উন্মোচন করেছে। এ উপলক্ষে স্থানীয় একটি হোটেলে আয়োজিত অনুষ্ঠানে ডিপ্লোম্যাটিক কোরের সদস্যরা, আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের কর্মী, থিংক ট্যাংকস, বিভিন্ন ব্যবসায়িক নেতা উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন চীন, মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, ভিয়েতনাম, ইরান, দক্ষিণ কোরিয়া, উজবেকিস্তান, প্যালেস্টাইন, ইয়েমেন, মরক্কো, তিউনিসিয়া, অ্যাঙ্গোলা, সুইডেন, ফিনল্যান্ড, লুক্সেমবার্গ, ইউক্রেন, বসনিয়া-হার্জেগোভিনা, ভ্যাটিকান, কসোভো, ব্রাজিল, কিউবা, পেরু, চিলি, ভেনেজুয়েলা এবং ইকুয়েডরের রাষ্ট্রদূতরা।

অনুষ্ঠানে রাশিয়ান ফেডারেশন, জর্জিয়া, আর্জেন্টিনা এবং আজারবাইজেনের ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রদূতগণ এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, কেনিয়া, পোল্যান্ড এবং পানামা দূতাবাসের কূটনৈতিক প্রতিনিধিরাও হাজির ছিলেন।

ডিপ্লোম্যাট ম্যাগাজিন এর প্রকাশক মেইলিন ডি লারা এবং নেদারল্যান্ডসে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত শেখ মুহম্মদ বেলাল উপস্থিত রাষ্ট্রদূতদের সঙ্গে নিয়ে পত্রিকাটির মোড়ক উন্মোচন করেন। রাষ্ট্রদূত বেলাল প্রচ্ছদ হিসেবে মানবতার কল্যাণে নিবেদিতপ্রাণ প্রধানমন্ত্রীর ‘মাদার অব হিউম্যানিটি’ সংক্রান্ত খবরকে বেছে নেবার জন্য ডিপ্লোম্যাট ম্যাগাজিন-কে ধন্যবাদ জানান।

এসময় তিনি উপস্থিত সবাইকে প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্য থেকে জোরপূর্বক বাস্তচ্যুত মিয়ানমারের নাগরিকদের বাংলাদেশে আশ্রয় প্রদানের লক্ষ্যে বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্ত উন্মুক্ত করে দেবার বলিষ্ঠ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে লাখ লাখ নির্যাতিত মানুষের জীবন রক্ষা করে বিশ্ববাসীর কাছে কিভাবে ‘মাদার অব হিউম্যানিটি’ হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছেন সে বিষয়ে অবহিত করেন।

বাংলাদেশ সরকার নিজেদের অর্থনীতি, পরিবেশ এবং নিরাপত্তার ঝুঁকিকে উপেক্ষা করে শুধু মানবিক কারণে যেভাবে নির্যাতিত রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে খাদ্য, বাসস্থান, স্বাস্থ্যসেবা, পানি ও পয়ঃনিষ্কাশন ইত্যাদি সুবিধাদি প্রদান করেছে সে সম্পর্কেও তিনি বিস্তারিতভাবে বর্ণণা করেন। রাষ্ট্রদূত বেলাল জোরপূর্বক বাস্তচ্যুত মিয়ানমারের নাগরিকদের নিরাপত্তা, মর্যাদা এবং মৌলিক প্রয়োজনগুলো নিশ্চিত করে দ্রুত তাদের নিজেদের বাসভূমিতে ফিরে যেতে সহায়তা করার জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান। এছাড়া রোহিঙ্গা সমস্যার স্থায়ী সমাধানের লক্ষ্যে বিচারহীনতার সংষ্কৃতি বন্ধ করার প্রতিও তিনি জোর দেন।

Leave a Comment